সোমবার ১৫ এপ্রিল ২০২৪, বৈশাখ ১ ১৪৩১

কাব্যগ্রন্থ - এ দেশ আমার এ জন্মভূমি আমার

জাহাঙ্গীর মিদ্দে

প্রকাশিত: ১২:১৮, ৭ জুন ২০২৩

কাব্যগ্রন্থ - এ দেশ আমার এ জন্মভূমি আমার

কবি সেখ নুরুল হুদার কাব্যগ্রন্থ - এ দেশ আমার এ জন্মভূমি আমার

কবি সেখ নুরুল হুদার কাব্যগ্রন্থ " এ দেশ আমার এ জন্মভূমি আমার " গ্রন্থটি পাঠককে টানবে, শেষ পর্যন্ত পড়ার জন্যকাব্য গ্রন্থটির শিরোনাম কবিতায় কবি সেখ নুরুল হুদা লেখেন -- " আমি আসি না আরব, ইরান, তুরান হতে ,  আমার জন্ম এই গর্জনশীল দেশেতে । এ দেশ আমার এ জন্মভূমি আমার  এ আ- হিমাচল ভারতবর্ষ আমার।" এই সব লাইনে কবি সেখ নুরুল হুদা স্পষ্টতঃ বুঝিয়েছেন এ দেশ অর্থাৎ এই ভারতবর্ষ, তাঁর নিজের দেশ। প্রতি ইঞ্চি আসমুদ্রহিমাচল তাঁর। এই দেশের মাটি বাতাস হলো সবে তাঁর অধিকার, আর কেনই বা হবে না তিনি তো আরব, ইরান বা তুরান থেকে  আসেননি, জন্মেছেন এই ভারতে, আছেন এবং থাকবেন।

তবু কবির মনে হঠাৎ এমন সন্দেহ আসে কেন কবিতায় বোঝাতে হয় কেন, তিনি পর দেশীয় নয়? তিনি এ দেশীয়। কবির স্বীকারোক্তি থেকেই পাওয়া যায় এ প্রশ্নের উত্তর। তিনি লেখেন "মানুষ মানুষের উপর করে অত্যাচার , স্বাধীন ভারতে ঘনিয়ে এলো অন্ধকার।" এই  অন্ধকার কারা নিয়ে এল, কারাই বা অত্যাচার করছে, কাদের উপর? খড়্গকৃপাণে শান দিচ্ছে কারা? এক সম্ভাব্য সত্যির মুখোমুখি দাঁড়িয়ে কবি সেখ নুরুল হুদা উপলব্ধি করেন, তারা- কারা। তিনি তাই লেখেন-- "ধ্বংস কর এমনতর রাজনীতির মাথা না হলে আবার উঠবে সেই মৌলবাদের কথা।" কবির উপলব্ধি যে কত সত্য তিনি বুঝতে পারেন, বর্তমান সময়ের কদর্য রাজনীতিই অন্ধকার নিয়ে আসছে সমাজে। একে অপরের ওপর অন্ধকারের আড়াল করে দিতে চাইছে। বিচ্ছেদ করে দিতে চাইছে এই রাজনীতি মানুষকে। জাতপাতের বৈষম্যে।

এ সব কিছুর পর কবি কিন্তু বুঝেছেন, সংগ্রাম ছাড়া পথ নেই। তাই " সংগ্রাম আর সংগ্রাম " কবিতায় লেখেন " আমারা চলেছি দাবি আদায়ের পথে, তোমারা আছ আমাদের সাথে, তাই আমরা শপথ নিয়েছি কিছু চাই, শূদ্র আর মুসলিম সকলেই ভাই ভাই।" এর পরেও তিনি লিখেছেন--" আমরা সবাই হিন্দু মুসলিম ভাই ভাই, এক সাথে বাস, সবার সাথে করতে চাই।" এখানেই কবির উত্তরণ। তিনি ভারতীয়। তিনি এক বিশিষ্ট সম্প্রদায়ের। যে সম্প্রদায়কে কিছু লোক ঘৃণা করতে শেখায়। কিছু মানুষ হয়তো করে। কিন্তু তার দশ ভাগ মানুষ তা করে না। তাঁরা চান মৈত্রী। ঐক্য সংহতি। আর এখানেই ভারতীয় সমতার জয়।

কবি সেখ নুরুল হুদার " এ দেশ আমার এ জন্মভূমি আমার " কাব্যগ্রন্থে কবি তাঁর জন্মভূমি সম্পর্কে নিজের অবস্থান এবং করণীয়, সহজ সরল কথার মাধ্যমে ছবি এঁকেছেন। কবির এবং গ্রন্থটির পরিচিতিতে মলাটের শেষ পাতায় লেখা রয়েছে গ্রন্থটির সব কবিতাই ছন্দে লেখা। তবে এখানে কোন নির্দিষ্ট ছন্দের কথা বলার হয়নি। তাই একটু খটমটে লাগে এই ছন্দের বিষয়টায়। সে যাই হোক গ্রন্থটিতে অনেক গণ্যমান্য ব্যক্তির মতামত রয়েছে, যা কবির পক্ষে খুশির প্রাপ্তি। সব কবিতা দেশ ও জন্মভূমিকে নিয়ে অবশ্য লেখা নয়।। তার বাইরেও কিছু সুখ পাঠ্য কবিতা রয়েছে। এক কথায় পাঠককে টানবে কাব্যগ্রন্থটি শেষ পর্যন্ত পড়ার জন্য। পৃষ্ঠা, ছাপা ঝকঝকে। মলাটও খুব সুন্দর। কার্ড বোড বাইন্ডিং। মূল্যঃ একশো টাকা মাত্র।পরিবেশকঃ বাণী প্রকাশ,এ-১২৯ কলেজ স্ট্রিট মার্কেট (দ্বিতীয় তল),কলকাতা- ৭০০০০৭